সংগ্রহের পরই ৫২% ধান বিক্রিতে বাধ্য হন কৃষক

September 24, 2023 0 Comments

ধারে কৃষি উপকরণ ক্রয় ও গ্রামের মজুদাগার ব্যবস্থা উঠে যাওয়ার কারণে  দ্রুত ফসল বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকরা। সংগ্রহের এক মাসের মধ্যে ৫২ শতাংশ ধান বিক্রি করে দেন তারা। ‘বাংলাদেশে চালের প্রাপ্যতা ও দামের অস্থিরতা: একটি আন্তঃপ্রাতিষ্ঠানিক গবেষণা প্রতিবেদন-২০২০’ শীর্ষক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (ব্রি) এ গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে, মৌসুমের শুরুতেই এক মাসের মধ্যে উদ্বৃত্ত ধানের ৫২ শতাংশ বিক্রি করে দিচ্ছেন কৃষক। আর এক থেকে দুই মাসের মধ্যে বিক্রি হচ্ছে ২৫ শতাংশ, দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে ১৮ শতাংশ এবং চার মাস বা তার বেশি সময়ের মধ্যে বিক্রি করা হচ্ছে ৫ শতাংশ ধান। অর্থাৎ বেশি দামের আশায় ধান মজুদ করার প্রবণতা কম।

অবশ্য নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ধান বিক্রির পরিমাণে বেশ পরিবর্তন এসেছে। ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে এক মাসের মধ্যে বিক্রির পরিমাণ কিছুটা কমেছে। দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে বিক্রির পরিমাণ বেড়েছে।

২০১৯ সালে এক মাসের মধ্যে বিক্রি হয়েছিল ৬৫ শতাংশ ধান, যেখানে এক থেকে দুই মাসের মধ্যে ছিল ২০ শতাংশ, দুই-তিন মাসের মধ্যে ১৩ এবং চার মাস বা ততোধিক ছিল ২ শতাংশ। মূলত গত বোরো মৌসুমে ধানের ভালো দাম পাওয়ার কারণে প্রথম মাসে বিক্রির প্রবণতা কিছুটা কমেছে।

তবে এখনো প্রথম মাসের মধ্যে যে পরিমাণ বিক্রি হচ্ছে, তা কৃষকের জন্য বেশ ক্ষতির কারণ হচ্ছে। ধানের মজুদাগার ও আর্থিকভাবে কৃষকদের সক্ষম করে তুলতে পারলে কৃষকের ধানের মাধ্যমে আরো বেশি লাভবান করা সম্ভব বলে গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

গবেষক দলের প্রধান ও বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিএলআরআই) সাবেক মহাপরিচালক কৃষি অর্থনীতিবিদ ড. জাহাঙ্গীর আলম বণিক বার্তাকে বলেন, কৃষক যে ভালো নেই এটি তার একটি প্রতীকী চিত্র। প্রধানত দুটো কারণে মৌসুমের শুরুতে কৃষক ধান বিক্রি করে দিচ্ছেন। প্রথমত, কৃষক ধারদেনা করে ধান উৎপাদন করে বিধায় দ্রুত অর্থ পরিশোধের তাড়া থাকে। অন্যদিকে কৃষকের ঘরে এখন আর বাড়তি জায়গা নেই। ফলে আর্থিক সক্ষমহীনতা ও মজুদাগারের অভাবে বাধ্য হয়েই ধান বিক্রি করে দিচ্ছেন কৃষক। এ কারণে ধানের বাজারের নিয়ন্ত্রণ চলে গেছে মিলার ও ট্রেডার্সদের হাতে। আবার কৃষকের ধান উৎপাদন খরচ এক যুগ ধরে প্রতি বছর গড়ে ২-৩ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যদিকে এই এক যুগে মুনাফা কমে গেছে প্রায় ৮ শতাংশ। ফলাফল ধানের প্রকৃত দামে হ্রাস। একদিকে উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি, অন্যদিকে মুনাফার কমতি কৃষকদের আর্থিক সক্ষমতায় দারুণভাবে পিছিয়ে দিচ্ছে। এজন্য মোট উৎপাদিত ধানের ন্যূনতম ১০ শতাংশ কৃষকের কাছ থেকে সংগ্রহের পরামর্শ দেন তিনি।

তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত কয়েক বছরে ধানের উৎপাদন খরচ বাড়লেও কমে গেছে শস্যটির প্রকৃত দাম। কোনো কোনো বছর বোরো ধানে কৃষক লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছেন। যেখানে দেশের আবাদি জমির সিংহভাগেই বোরো ধান চাষ হয়। বোরো আবাদে কৃষকের হেক্টরপ্রতি লোকসান এখন প্রায় ৬ হাজার টাকা। এ লোকসানের অন্যতম কারণ শ্রমিক ব্যয়। পারিবারিক ও ভাড়া শ্রমিকের পেছনে ব্যয় হচ্ছে মোট উপকরণ খরচের প্রায় ৪৬ শতাংশ। কৃষকের উৎপাদন খরচ কমাতে যান্ত্রিকীকরণ ও কৃষিপণ্যের আধুনিক বাজার ব্যবস্থা ও বাণিজ্যিকীকরণ দরকার বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে এসিআই এগ্রিবিজনেসেসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য ড. ফা হ আনসারী বণিক বার্তাকে বলেন, ধান কাটা থেকে শুরু করে সব পর্যায়ে যান্ত্রিকীকরণ করতে পারলে কৃষকদের বড় ধরনের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব। কম্বাইন হারভেস্টার জমির ধান কাটা থেকে মাড়াই ও বস্তাবন্দি করে বাড়িতে নিয়ে আসা পর্যন্ত কৃষকের খরচ ও সময়ের বড় ধরনের সাশ্রয় করে। এছাড়া প্রথাগতভাবে ধান কাটা ও মাড়াই করলে ধানের ১২-১৫ শতাংশ নষ্ট হয়। যন্ত্রের মাধ্যমে সেই কাজটি করলে ক্ষতির পরিমাণ ৩ শতাংশে নামিয়ে আনা সম্ভব। পাশাপাশি যন্ত্রের ব্যবহারের মাধ্যমে তরুণ কর্মসংস্থানকে এগিয়ে নেয়া সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, শস্যের নিবিড়তা বাড়ানোর মধ্যেমে কৃষকের আয় বৃদ্ধি এবং ইন্টারক্রপিং গ্যাপ (আন্তঃফসল বিরতি) কমিয়ে এনে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করা সম্ভব। কৃষকের উৎপাদন খরচের বহুমুখী মাধ্যম প্রয়োগ করে মুনাফা বৃদ্ধি করতে হলে যান্ত্রিকীকরণের বিকল্প নেই।

আন্তর্জাতিক খাদ্যনীতি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইএফপিআরআই) একটি গবেষণায় দেখা গেছে, জমির পরিমাণ বা আকারের হিসাবে দেশের প্রায় ৮৩ শতাংশ কৃষকই প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র। শূন্য দশমিক ৫ একরের নিচে এমন আকারের জমি আবাদ করে থাকেন ৩৬ শতাংশ কৃষক। তাদের বলা হয় প্রান্তিক কৃষক। আর শূন্য দশমিক ৫ থেকে দেড় একরের কম জমি আবাদ করেন ৪৭ শতাংশ, সংজ্ঞানুযায়ী তারা ক্ষুদ্র কৃষক। ফলে দেশের সিংহভাগ কৃষকই ক্ষুদ্র ও ছোট জমিতে আবাদ করেন। এসব জমিতে আবাদের মাধ্যমে কৃষক নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য ও অন্যান্য আর্থিক এবং সামাজিক চাহিদা পূরণ করেন। এতে চাহিদা মেটানোর জন্য কাটার শুরুতেই ধান বিক্রি করতে বাধ্য হন কৃষক। এটির সুযোগ নিচ্ছেন মিলার ও ফড়িয়ারা।

এ বিষয়ে ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর বণিক বার্তাকে বলেন, একদিকে ক্ষুদ্র কৃষক অন্যদিকে আর্থিক সক্ষমতাহীনতা। এ দুটোর প্রভাবে আর্থিক ব্যবস্থাপনায় বেশ ঝুঁকিতে থাকেন কৃষক। মিলারদের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো কৃষকের এ আর্থিক দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে বাজার থেকে সবচেয়ে কম দামে ধান কিনতে পারা। তাই কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনা বাড়াতে হবে। সংগ্রহ পদ্ধতির আধুনিকায়ন করতে হবে। উৎপাদন খরচ কমাতে উন্নত জাতের ধান ও প্রযুক্তি কৃষকের মধ্যে সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। এছাড়া বাণিজ্যিকভাবে ভালো দাম পাওয়া যায় এমন জাতের আবাদ বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ধান আবাদে কৃষককে লাভবান করতে না পারলে দেশের খাদ্যনিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়বে।

Leave A Comment

To Top